শিরোনাম :

প্রচ্ছদ » মুক্তমন

স্কুলভ্যান কতটুকু নিরাপদ?

শুক্র, ১১ মার্চ'২০১৬, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন


স্কুলভ্যান কতটুকু নিরাপদ?  
কাওসার আজম
বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১১টা। রাজধানীর বিদ্যুৎ ভবনের পাশে আব্দুল গণি রোডে একটি স্কুলভ্যান পশ্চিমদিকে (হাইকোর্ট-দোয়েল চত্বর রোড) যাচ্ছিল। ভ্যানের ভেতরে ১২ জন শিক্ষার্থী। তাদের বয়স ৮-১২ বছরের মধ্যে হবে। প্রথম শ্রেণি থেকে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে তারা।
স্কুলভ্যানের উপরে শিক্ষার্থীদের বইখাতাভর্তি স্কুল ব্যাগ। ভেতরে গাদাগাদি করে দুই সারিতে বসা ১২ জন শিক্ষার্থী দুষ্টুমিতে ব্যস্ত। পেছনে ঝুলছে ৮-১০ বছর বয়সী একটি মেয়ে। চলন্ত পথে স্কুলভ্যানের ভেতর থেকে কেউ কেউ ভ্যানের পেছনের দরজা খুলে নামারও চেষ্টা করছে। একজন আরেকজনকে কাতুকুতুই দিতে দেখা গেছে এ সময়। এসব দুষ্টু বালক-বালিকাদের কাছে ভ্যানচালক নিতান্তই অসহায়। মাঝে মধ্যেই ধমক দিয়ে তাদের দুষ্টুমি নিবৃত্ত করার ব্যর্থ চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু, কে শোনে কার কথা! এভাবেই বিদ্যুৎ ভবনের পাশের আব্দুল গণি রোড দিয়ে হাইকোর্ট মাজারের সামনে গিয়ে থামল স্কুলভ্যানটি। সেখানে নেমে গেল কয়েক শিক্ষার্থী।
ভ্যানচালক জানান, সেগুনবাগিচা স্কুলের শিক্ষার্থী তারা। এরপর হাইকোর্টের ভেতর দিয়ে ফের বাকি দুষ্টু বালক-বালিকাদের নিয়ে বাসার দিকে রওনা হলেন ভ্যানচালক।
রাজধানীতে স্কুলভ্যানে চড়ে এভাবেই ছোট ছোট শিক্ষার্থীরা বাসা থেকে স্কুলে এবং স্কুল থেকে বাসায় যাতায়াত করছে।
রাজধানীর নামীদামি স্কুলে প্রাণপ্রিয় সন্তানকে স্কুলে ভর্তি করানোর জন্য অভিভাবকদের রীতিমতো যুদ্ধে নামতে হয়। শুধু নামীদামি নয়, সন্তানকে মধ্যম সারির স্কুলে ভর্তি করতেও হালের বছরগুলোতে হিমশিম খেতে হয় বাবা-মায়েদের। সন্তানকে স্কুলে ভর্তি করানোর পর অনেকেই স্কুলভ্যানে করে সংশ্লিষ্ট স্কুলে আনা নেওয়ার ব্যবস্থা করেন। ভরসা করেন ভ্যানচালকের ওপর। বিশেষ করে চাকরিজীবী ব্যস্ত বাবা-মায়েদের ক্ষেত্রেই এটি বেশি হয়ে থাকে। কিন্তু, ভ্যানে সন্তানদের বাসা থেকে স্কুলে নেওয়া-আনার জন্য যে চালককে দায়িত্ব দেওয়া হয় বা যার উপর ভরসা করে সন্তানকে স্কুলে পাঠানো হয়—সেটা কতটুকু নিরাপদ তা অভিভাবকরা ভেবে দেখেছেন কী? 




এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন

close