শিরোনাম :

প্রচ্ছদ » সাহিত্য

উল্লসিত অভিজ্ঞতার বিশুদ্ধ প্রকাশ আর বেঁচে থাকার বিস্ময় অাজ পাঠকদের জন্য প্রকাশিত হলো কবি শিমন রায়হান-এর কবিতা ও

শনি, ২৬ মার্চ'২০১৬, ১২:৫৯ অপরাহ্ন


উল্লসিত অভিজ্ঞতার বিশুদ্ধ প্রকাশ আর বেঁচে থাকার বিস্ময় অাজ পাঠকদের জন্য প্রকাশিত হলো কবি শিমন রায়হান-এর কবিতা ও  
কবিতা-ভাবনা
উল্লসিত অভিজ্ঞতার বিশুদ্ধ প্রকাশ আর বেঁচে থাকার বিস্ময় মিলে হয় কবিতা। যা স্বভাবজ এবং যাপনের সঙ্গে ওতপ্রোত। কবিতা প্রথাগত পদ্ধতিতে জ্ঞান দিতে কিংবা কোনও লিফলেট, বিলবোর্ড বা পরজীবি মতবাদের ঝাণ্ডা হতে আসেনি। বরং সে প্রাকৃত জীবনের সমান্তরাল। আঙ্গিক, শৈলী, ভাষাবোধের উৎকর্ষতার সঙ্গে সূক্ষ্ম ও স্বকীয় অন্তর্দৃষ্টি যেমন কবিতার পূর্বশর্ত তেমনি লেখকমানসের রুপান্তর সাধন ও আত্মবিলোপের ক্ষমতাও অপরিহার্য। এসব রপ্ত করেই মাতাল শিল্পী একের পর এক কথাভাস্কর্য দাঁড় করাতে থাকেন। ক্ষত আত্মার শুশ্রুষায় ফিটকিরির দোকান খুলে বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির অবশিষ্টটির মতন একজন কবির বিপন্নতায় বসবাস। তাঁর কবিতা রাজার ফুলবাগানে বেড়াতে গেলেও তিনি বাঁচেন ঘোরলাগা টিমটিম আলোয়।কবি সবার ভেতর কুঠুরীর পাসওয়ার্ড জানেন।তাঁর সার্বভৌমত্বের ধারণা তাই ভণ্ডের কাছে অনভিপ্রেত।ক্রমসমানুপাতিক অলসতায় কবিতা ক্ষান্ত দিলেও শূন্যাতিশূন্যে ভেসে বেড়ায় কবিতার অশরীরি সব ফসিল। কোন অর্ঘ্যই একটি কবিতার সমকক্ষ হয়ে উঠতে পারে না। কবিতা স্বয়ম্ভু ও শেষ কথা। শেষোব্দি কবিতাই অমোঘের সমার্থক থেকে যায় শুধু।
বোর্হেসকে সাথে নিয়ে বলতে হয়- যা কিছুই প্রকাশ করি তার সবই খসড়া। সব মৌলিক রচনাই অবিরাম সংশোধনযোগ্য। সুতরাং এসব বিচ্ছিন্ন, অনধিকার ভাবনার দায় আমার কবিতা বহন করবে না।
একগুচ্ছ কবিতা
কেতকীর মুখ
আলো ধুয়ে দেয়
                 কেতকীর মুখ
                 আলো হয়ে যায়
কেতকীর মুখ
.. আলো তাই ধন্বন্তরি ওর মুখের আড়ালে
কেতকীর মুখ- ১৩
তুই মুছে যাস আমার চোখেই
ধূসর স্লেট কেবলি মুছে ফেলে
ইরেজারের কোমল অবিশ্বাসে
কেতকীর মুখ-১৫
যেকোনও গাঢ়তায় তারপিন ঢেলে দিই
মেঘ কেঁটে কেঁটে নামি
খনন হই
গলে যাই
গলনাংকের কিঙবা খননাংকের শিওরে
তাঁর নির্লিপ্তি পড়ে থাকে
স্বতন্ত্র তারার মতো
কথাগারে আছি
তোমার সংগোপন নিয়ে হয়ে আছি কথার ব্যারাক
অপেক্ষায় জমে তবু
বধিরপাথরের কাছে গান রেখে যাই
হাওয়ার মধ্যে ইঙ্গিত
হাওয়ার মধ্যে সরাইখানা
ভূমি থেকে আকাশে উৎক্ষেপণযোগ্য কবিতা
সাঁজোয়ামেঘ হয়ে চরে
কথাগারিকের কাছে শুধু গান জমা হয়
উড়াল বন্দর
যেহেতু হাওয়ায় নেই কোনও কাঁটাতার
রানওয়েময় অবারিত সরল চরাচর
প্রকৃত ডানার সন্ত্রাসে তাই
এঞ্জিন বিকলের গল্প জমা হয়
আর সঙ্গীণ নিরীখে বার্ডশ্যুটার
তুলে নেয় দম
               উড়বার অন্যান্য ধারণা
খোয়ারি
সম্ভ্রান্ত আসবাবের বিজ্ঞাপনে আসে সংসারের কপট ডাক
সাজানো সোফার ওপর হাসে আমার বউ
স্বয়ংক্রিয় এই সমস্ত স্বপ্নে অগুন্তি মখমলের ফুল
উড়ে যায় জ্বরগ্রস্ত বিকল্পে নগরে
রাসভের নোটবুক
পিচপথে ধোয়া উড়ছে বৃষ্টির পর
এটিএম বুথের নিঃসঙ্গ দারোয়ান আর যাত্রী ছাউনী
তবু বেকার প্রসঙ্গ থেকে গেল
 
ছাঁচবার্তা
ধারণার বোকা উল্কিতে অপেক্ষা তা দেয় ম্যাজিকডিম্বে
রিলকের শ্যামাপোকা পড়ে আলো পায় পোকা সংক্রান্ত সংবেদন
তীব্র আলোর বিপরীতে বারণ ক্যামেরা আর চোখ
কতিপয় টেমপ্লেটসের শালপ্রাংশু আহ্লাদে
তবু রোপিত হয় অফুরান বিস্ময়ের জোনাকবৃক্ষ
হাওয়ায় কুড়োনো খবরে গাজন আসে
                                        আসে টেমপ্লেটস্
স্যাঁতসেঁতে গারদে মাছেদের মাতাল কঙ্কাল
না পৌছোনোর নিয়মে ওদের পরাজিত পুঁথি
এখানে ওষুধের গন্ধে ভারী মাতামহের মৃত্যুসাঁজ
বাঁকে নিয়ে ফেরে কথার ওজন
উজবুক মেঘ
তারপর উড়ে গেলি শাদা টয়োটায়
আমি ফিরলাম উজবুক মেঘে ভেসে
এরপর কোটি আলোকবর্ষ দূর এবং তুই
তোর সিন্দুকে তোলা আমার ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট
.. অপেক্ষাশিল্প কী ভীষণ ভাস্কর্যময়
বস্তুত কাগজফুলেই ঘুমাই
করিডোরে আঁকা খোপগুলো নকশা হয়ে
মিলিয়ে গেল ওপ্রান্তের প্রকৃত লতায়
তার কয়েকটি রেখায় নিজেকে নার্সিসাস ভাবছি
চড়ুই দুটোর ঘেমে যাওয়া দেখে হতবিহ্বল থাকতে থাকতে
এইসব রূপকথার কাগজফুল হয়ে যাওয়া দেখলাম
অপেক্ষাকে প্রস্তুত থাকতে বলা যায় বুড়ো কবিতার অভিজ্ঞতায়
যুদ্ধবন্দী চোখে বিস্তর আশ্চর্যের ফুটে ওঠা দেখতে
আগামীকালেরা সত্যিই এলিয়েন মেঘের মতো কথা রাখে না
তাই প্রতিশোধ সন্ত্রস্ত কপালে মেঘ মাশরুম
যদিও রূপকথা আমার বউ... জ্বর... ঘুম 




এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন

close