শিরোনাম :

প্রচ্ছদ » বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

আয় বেড়েছে গ্রামীনফোনের

সোম, ১৮ Jul'২০১৬, ৯:১৩ অপরাহ্ন


আয় বেড়েছে গ্রামীনফোনের   
গ্রামীণফোন লিমিটেড ২০১৬ সালের প্রথম ছয় মাসে রাজস্ব আয় করেছে ৫৫৬০ কোটি টাকা, যা ২০১৫ এর একই সময়ের তুলনায় শতকরা ৮.১ ভাগ বেশি। সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে একথা জানানো হয়।
 
বিবৃতিতে বলা হয়, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় নতুন গ্রাহক ও প্রদত্ত সেবা থেকে প্রাপ্ত রাজস্ব বেড়েছে ১০.৯% ভাগ যাতে ডাটা থেকে আয়কৃত রাজস্বের বড় অবদান আছে। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ডাটা রাজস্ব বেড়েছে ৬৪.৬% এবং ডাটার ব্যবহারও বেড়েছে ১৮৬.৪%।
 
এই সময় ভয়েস কল থেকে অর্জিত রাজস্ব বেড়েছে ৪.৮%। ২০১৬ এর ২য় প্রান্তিকে ৬.৬% প্রবৃদ্ধি হয়ে রাজস্ব হয়েছে ২৮১০ কোটি টাকা।
 
২০১৬ এর প্রথমার্ধে গ্রামীণফোন ২ লাখ নতুন গ্রাহক সংগ্রহ করে ফলে মোট গ্রাহক সংখ্যা দাড়িয়েছে ৫ কোটি ৬৯ লাখ। গত বছরের তুলনায় এটি ৭.১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি এবং এতে সিম মার্কেট শেয়ার হয়েছে ৪৩.৩% (মে ২০১৬)।
 
এসময় গ্রামীনফোনের ইন্টারনেট গ্রাহক যোগ হয়েছে ৬১ লাখ ফলে মোট ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা দাড়িয়েছে ২ কোটি ১৮ লাখ।
 
গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী রাজীব শেঠি বলেন, ‘গ্রামীণফোন অত্যন্ত সফলভাবে ২০১৬ এর প্রথম অর্ধ পার করেছে। এসময় ডাটা গ্রাহক এবং এর ব্যবহার দুটোই বেড়েছে। আমরা ১০,০০০ ৩জি বিটিএস স্থাপন শেষ করেছি এবং এর ফলে দেশের ৯০ % মানুষ ৩জির আওতায় এসেছে।’
 
তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের ভয়েস থেকে অর্জিত রাজস্বও এবং মিনিট ব্যবহার বাড়ছে। যা আমাদের আগামীতে সাফল্যের ধারা অব্যাহত রাখতে সাহায্য করবে।’
 
আয়কর প্রদানের পর ২০১৫ এর প্রথমার্ধের শতকরা ২০.৪ ভাগ মার্জিন সহ ১০৫০ কোটি টাকা মুনাফার তুলনায় ২০১৬ এর একই সময়ে নিট মুনাফা হয়েছে শতকরা ১৯.২ ভাগ মার্জিন সহ ১ হাজার ৭০ কোটি টাকা। অধিকতর রাজস্ব এবং দক্ষ  পরিচলণ ব্যয়ের ফলে EBITDA (অন্যান্য আইটেমের আগে) ৫৪.৮% মার্জিন সহ ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা। এই সময় শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস)ছিল ৭.৯২ টাকা।
 
গ্রামীণফোনের সিএফও দিলীপ পাল বলেন, ‘২০১৬ এর প্রথম অর্ধে আমরা দুই অংকের গ্রাহক ও ট্রাফিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি। আমাদের সহজ গ্রাহক কেন্দ্রিক পন্য এবং ৩জি সম্প্রসারণে অব্যাহত বিনিয়োগই এই প্রবৃদ্ধির চালিকা শক্তি। দৃঢ় রাজস্ব প্রবৃদ্ধি এবং দক্ষ ব্যয় EBITDA মার্জিন এর উন্নয়ন ঘটিয়েছে। উচ্চতর অবচয় এবং এমোর্টাইজেশন স্বত্বেও শেয়ার প্রতি আয় স্থিতিশীল আছে।’
 
তিনি আরো বলেন, ‘আমি আনন্দের সাথে জানাচ্ছি যে গ্রামীণফোনের বোর্ড অফ ডিরেক্টর পরিশোধিত মূলধনের ৮.৫% অন্তবর্তী লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে।’
 
এ বছরের প্রথমার্ধে ৩জি বিস্তার, ২জি বিস্তার ও ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে গ্রামীণফোন ১৩৬০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে। এদিকে দেশের বৃহত্তম করদাতা গ্রামীণফোন একই সময়ে কর, ভ্যাট, শুল্ক এবং লাইসেন্স ফি আকারে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে ৩৩১০ কোটি টাকা জমা দিয়েছে, যা প্রতিষ্ঠানের মোট রাজস্ব আয়ের ৫৯.৫ শতাংশ।




এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন

close