শিরোনাম :

প্রচ্ছদ » দেশের খবর

যমুনার পানি বৃদ্ধিতে সিরাজগঞ্জের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

শনি, ২৩ Jul'২০১৬, ৯:২১ অপরাহ্ন


যমুনার পানি বৃদ্ধিতে সিরাজগঞ্জের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত  
উজান থেকে পাহাড়ি ঢল ও ভারী বর্ষণে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জেলার নিম্নাঞ্চল ও চাঞ্চল্যের ২৪টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে।
 
পানিবন্দী হয়ে পড়েছে কয়েক হাজার মানুষ। এর মধ্যে সদর উপজেলার কাওয়াকোলা ইউনিয়নের ২৫টি গ্রামই বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। জেলার বেলকুচি ও চৌহালী উপজেলার এনায়েতপুর, ব্রামনগ্রামসহ বেশকয়টি গ্রামে দেখা দিয়েছে নদী ভাঙ্গন। দুর্বিসহ অবস্থায় মধ্যে দিন কাটছে এ অঞ্চলের মানুষেরা।
 
দেখা গেছে, জেলার ৮৩টি ইউনিয়নের মধ্যে ২৪টি ইউনিয়ন মধ্য যমুনায় চরাঞ্চলে অবস্থিত। পানি বাড়ার সাথে এসব অঞ্চল বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। ফসলী জমি পানিতে তলিয়ে গেছে। চাঞ্চল্যের রাস্তাঘাট তলিয়ে গেছে। বসতবাড়ি ও বাড়ীর চারপাশে পানি ওঠায় মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছে। দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও শুকনো খাবারের সংকট। এছাড়াও পানি বাড়ার সাথে সাথে চৌহালীর উপজেলার এনায়েতপুরে নদীর তীরবর্তী ব্রামন গ্রাম, স্থল, ঘোরজান, চৌহালীতে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। গত কয়েকদিনের প্রায় শতাধিক বসতভিটা নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙ্গন কবলিত মানুষেরা বসত বাড়ি অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।
 
বন্যা আর নদী ভাঙ্গন এলাকায় মানুষের মাঝে চরম দুরাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তবে এখনো কোন সরকারি সহায়তা পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শাহজাহান আলী জানান, উপজেলা পরিষদের নির্দেশনা অনুযায়ী তালিকা তৈরির কাজ চলছে। বন্যা আর নদী ভাঙ্গন এলাকার ইউপি চেয়ারম্যানকে তালিকা তৈরির নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
 
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী হাসান ইমাম জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি ৮ সেমি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ১৭ সে.মি. নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জেলার নিম্নাঞ্চলের বেশ কিছু এলাকায় পানি ঢুকেছে। তবে জেলায় বেলকুচিও চোহালী উপজেলার ব্রামনগ্রাম, স্থল, ঘোরজান সহ কয়েটি গ্রামে নদী ভাঙ্গন দেখা দিলেও অন্যান্য সব জায়গা স্বাভাবিক আছে।




এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন

close