শিরোনাম :

প্রচ্ছদ » জাতীয়

ভোটারের উপস্থিতি কম গাইবান্ধা

বুধ, ২২ মার্চ'২০১৭, ১১:০৫ অপরাহ্ন


 ভোটারের উপস্থিতি কম গাইবান্ধা  
এমপি লিটনের আসন গাইবান্ধা-১ সুন্দরগঞ্জে জাতীয় সংসদের উপ-নির্বাচন আজ বুধবার সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। কিন্তু সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত বেশ কয়েকটি কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে ভোটারের উপস্থিতি কম। 
 
গাইবান্ধা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ-আল-মোতাসিম জানান, উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার মোট ১০৯টি ভোট কেন্দ্রের ৬৩৭টি বুথে বিরতীহীনভাবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন চলবে। উপজেলার মোট ৩ লাখ ৩৩ হাজার ৮০৭ জন ভোটার তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট প্রদান করবেন। তারমধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৭০ হাজার ৮৪১ ও পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৬২ হাজার ৯৬৬।
 
সকাল সোয়া ৮টায় সুন্দরগঞ্জ উপজেলার রামজীবন ইউনিয়নের বাজারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, ভোট কেন্দ্রে ভোট দেওয়ার জন্য ভোটারদের উপস্থিতি তেমন নেই। সকাল পৌনে ৯টা পর্যন্ত পার্শ্ববর্তী ধোপাডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও সকাল সোয়া ৯টা পর্যন্ত বজরা হলদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়েও ভোটার উপস্থিতি তেমন ছিল না। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটার উপস্থিতি বাড়তে পারে বলে জানান নির্বাচন সংশ্লিষ্টরা। 
 
ধোপাডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা বেলাল হোসেন জানান, এ কেন্দ্রে মোট ভোটার ৩ হাজার ৮৮৯। এর মধ্যে নারী ভোটার ১ হাজার ৯৭৯ জন। কিন্তু সকাল পৌনে ৯টা পর্যন্ত মাত্র ১৯ টি পুরুষ ভোট পরেছে। কোন নারী ভোট দিতে আসেননি। 
 
রংপুর অঞ্চলের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও এই উপ-নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা রিটার্নিং কর্মকর্তা জিএম সাহাতাব উদ্দিন জানান, এ নির্বাচনে নিয়োগকৃত ১০৯ জন প্রিজাইডিং কর্মকর্তা, ৬৩৭ জন সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ও ১ হাজার ২৭৪ জন পোলিং কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে রয়েছেন একজন পুলিশ ইন্সপেক্টরের নেতৃত্বে অস্ত্রধারী পুলিশ ও আনসার মিলে ৩০ জন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য।  দুর্গম ও চরাঞ্চলের কেন্দ্রগুলোতে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ফল ঘোষণার জন্য স্থানীয় উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হয়েছে।
 
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম জানান, ভোট কেন্দ্রে পাঁচ স্তরে চার সহস্রাধিক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত রয়েছেন। তার মধ্যে ৮ প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাবের ১৬টি ইউনিট ও ৪ হাজার পুলিশ ও আনসার সদস্য। এছাড়াও দায়িত্ব পালন করছেন সাদা পোশাকের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিশেষ টিম ও ১৯ জন নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট এবং চারজন জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট।
 
উল্লেখ, গত ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হলে জাতীয় সংসদের এই আসনটি শূন্য হয়।





এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন

close