শিরোনাম :

প্রচ্ছদ » খুলনা

‘কাহিনী’ ফেঁদে লাভ হলো না যুবলীগের যুগ্ম আহবায়কের

শুক্র, ৩১ Jul'২০১৫, ৯:৩৭ অপরাহ্ন


‘কাহিনী’ ফেঁদে লাভ হলো না যুবলীগের যুগ্ম আহবায়কের  
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ ‘কাহিনী’ ফেঁদে লাভ হলো না। অবশেষে জানা গেলো, একদল দুর্বৃত্ত নয়, অন্যের স্ত্রীকে ধর্ষনের উদ্দেশ্যে ঝাঁপটে ধরলে তার স্বামীর ধারালো হাঁসুয়ার কোপে ধরাশয়ী হয়ে আহত অবস্থায় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক ও দর্শনা পৌরসভার শ্যামপুরের মরহুম তনু মলিলকের ছেলে আব্দুল হান্নান ছোট (৪০)। আব্দুল হান্নান ছোট পারলো না তার রাতে সাজানো কাহিনী দিনের বেলায় ধরে রাখতে। দিনের আলোয় সব কিছুই ফাঁস হয়ে গেলো।
গত বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ধারালো অস্ত্রের কোপে মারাত্বক আহত অবস্থায় চিকিৎসা নিতে আসা দামুড়হুদা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল হান্নান ছোট জানান, সে রাঙ্গিয়ার পোতা গ্রামের পাশে বাওড়ে ওই রাতে ‘মাছ’ দেখতে গিয়েছিলো। শিংনগর ব্রিজের কাছে এলে একদল দুর্বৃত্ত তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে চলে যায়। এরপর তাকে স্থানীয় জনসাধারণ উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসে।
আব্দুল হান্নান ছোট’র ফাঁদা কাহিনী বিশ্বাসে না নিয়ে দামুড়হুদা ও চুয়াডাঙ্গা পুলিশ প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের জন্য তদন্ত শুরু করে। আর এই তদন্তেই বেরিয়ে আসল রহস্য।
চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় অফিসার ইনচার্জ লিয়াকত হোসেন জানান, দামুড়হুদা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল হান্নান ছোট ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত হওয়ার পর পুলিশের পক্ষ থেকে তদন্ত শুরু হলে প্রকৃত রহস্য উদঘাটিত হয়। প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, ঘটনার সময় রাঙ্গিয়ার পোতা গ্রামের পাশে বাওড়ে তিনি মাছ দেখতে যান নি। ওই সময় বাওড়ের পাশে হত দরিদ্র দিন মজুর কাউসারের স্ত্রী শেফালীর ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষনের উদ্দেশ্যে আব্দুল হান্নান ছোট ঝাঁপটে ধরলে তার স্ত্রীর চিৎকারে পাশের রান্না ঘরে ঘুমিয়ে থাকা কাউসার তাকে বাঁচাতে গিয়ে ধারালো হাঁসুয়া নিয়ে ছোট’র ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তাকে এলোপাতাড়ী কোপাতে থাকে। এই অস্ত্রাঘাতেই যুবলীগ নেতা ছোট আহত হয়। এ ব্যাপারে কাউসারের স্ত্রী শেফালী ধর্ষন প্রচেষ্টা মামলা করতে চাইলে তা গ্রহন করা হবে বলেও তিনি জানান।
দর্শনা পৌরসভার শ্যামপুর এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অবিবাহীত যুবলীগ উপজেলার নেতা আব্দুল হান্নান ছোট। নারীবাজি তার নেশায় পরিনত হয়ে গিয়েছিলো। এতদিন অপতিরোধ্য ভাবে নারীবাজি করে গেলেও মামলা, হামলা ও হয়রানীর ভয়ে কেউ তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতো না। অবশেষে তার অন্যায়ের প্রতিরোধ হওয়ায় এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।




এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন

close