শিরোনাম :

প্রচ্ছদ » সম্পাদকীয়

দেশে আর কত ক্লিনিকের অবহেলার কারনে নবজাতক বা প্রসূতির মৃত্যু হলে প্রশাসনের টনক নড়বে?

শনি, ১৫ অগাস্ট'২০১৫, ৭:৩১ অপরাহ্ন


দেশে আর কত ক্লিনিকের অবহেলার কারনে নবজাতক বা প্রসূতির মৃত্যু হলে প্রশাসনের টনক নড়বে?  
খুলনা মহানগরীর রায়পাড়া রোডস্থ মাতৃসদন 'নগর মাতৃসদন' ক্লিনিকে টাকার লোভে নার্স-ডাক্তারের হাতে নবজাতক শিশুকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। সূত্রে জানা যায়, ময়লাপোতা নূরানী মহল্লা পোড়াবস্তি এলাকার দরিদ্র দিনমজুর বাদশার স্ত্রী মুক্তা বেগমের প্রসব বেদনা উঠলে দ্রুততার সাথে 'নগর মাতৃসদন' ক্লিনিকে আনা হয়। তৎক্ষণাৎ তাকে ক্লিনিকে ভর্তি না করিয়ে কর্মরত ডাক্তাররা ১০,০০০ টাকা দাবি করে নইলে তারা এখন প্রসব করাবেনা একথা সাফ জানিয়ে দেয়। এমতাবস্থায় অন্তঃস্ত্বা মুক্তা বেগমের অবস্থা খুব খারাপের দিকে মোড় নেয় এবং ঘটনাক্রমে তার প্রসবস্থল হতে বাচ্চার মাথা বেরিয়ে আসে। সাধারণ ডেলিভারিতে কম টাকা পাওয়া যাবে বিধায় বেশি টাকার লোভে কর্মরত নার্স প্রিয়াংকা বাচ্চার মাথা মুক্তা বেগমের ভেতরে ধুকিয়ে দেবার চেষ্টা চালায়। ফলাফল হিসেবে কচি নবজাতক বাচ্চার মাথার চাড়া ফেটে যায় এবং রক্তক্ষরণ হতে শুরু করে। তখন আবার ডাক্তার নার্স সবাই তাদেরকে খুলনা মেডিকেলে চলে যেতে বলে এবং এই ক্লিনিকে ডেলিভারি সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দেয়। ডাক্তার-নার্সের এমন ইচ্ছাকৃত অবহেলায় নবজাতক শিশুটি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। এই ঘটনায় এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে ক্লিনিক ভাংচুরের চেষ্টা চালায়।বিপুল পরিমাণ পুলিশ মোতায়েন সাপেক্ষে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কর্তব্যের অবহেলায় নবজাতক শিশু হত্যার কারণে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে সূত্রে জানা গিয়েছে। ক্লিনিকের প্রধান সার্জন বাণী সাহা পুলিশের হেফাজতে আছে এবং প্রিয়াংকাসহ ২ জন নার্স পলাতক রয়েছে। শিশুটির মা মুক্তা বেগম ওই ক্লিনিকের একটি ওয়ার্ডে সেবা গ্রহণ করছে।
ঘটনা ঘটে। তদন্ত হয়। ওই পর্যন্তই। দেশে আর কত ক্লিনিকের অবহেলার কারনে নবজাতক বা প্রসূতির মৃত্যু হলে প্রশাসনের টনক নড়বে? টাকার লোভে যারা নামকাওয়াস্তে ক্লিনিকের ব্যবসা খুলে বসেছে, যাদের পর্যাপ্ত বিশেষজ্ঞ ডাক্তার নেই বা যাদের কাগজপত্রও নেই তাদের বিরূদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন অভিজ্ঞ মহল।




এ বিভাগের আরো সংবাদ

মন্তব্য করুন

close